স্বাস্থ্যবিধি না মানায় জরিমানা গুনল ৩০টি রেস্টুরেন্ট

বশির আলমামুন
চট্টগ্রাম মহানগরে সরকারি নির্দেশনা ও স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ৩০টি রেস্টুরেন্টকে জরিমানা গুনতে হয়েছে সাড়ে ৩৮ হাজার টাকা। ১১ এপ্রিল রোববার নগরের পাঁচলাইশ, চান্দগাঁও, খুলশী, পতেঙ্গা ও বায়েজিদের বিভিন্ন রেস্টুরেন্টে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে এই জরিমানা করেন।
জানা গেছে, গত রোববার নগরের পতেঙ্গা ইপিজেড ও বন্দর এলাকায় অভিযানে যান  নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট প্লাবন কুমার বিশ্বাস। এ সময় তিনি একটি জিম সেন্টারকে ৫শ টাকা, সাহেববাবু বৈঠকখানা ও সি মারমেইড রেস্তোরাকে  ৫শ টাকা, পতেঙ্গা হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্টকে ১ হাজার টাকা ও পোড়ামাটি রেস্টুরেন্টকে ২ হাজার টাকা জরিমানা করেন। ৬টি মামলায় মোট ৪ হাজার ৭শ  টাকা জরিমানা আদায় করেন তিনি। অন্যদিকে খুলশী ও বায়েজিদ এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আতিকুর রহমান। এসময় তিনি ৬টি মামলায় ৬ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেন। এরমধ্যে জামান হোটেলকে ২ হাজার টাকা, নিউ মালঞ্চ রেস্টুরেন্টকে ৫শ টাকা, ভাতঘর হোটেলকে ৫শ টাকা, নূর মোহাম্মদ হোটেলকে ৫শ টাকা জরিমানা করেন।
এছাড়া নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. উমর ফারুক নগরের বেশকিছু এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ৯টি মামলায় ১৫ হাজার ৩০০ টাকা অথদন্ড আদায় করেন। এরমধ্যে সরকারি নির্দেশনা না মানায় জালালাবাদ হোটেল ৩ হাজার টাকা, এরিটস ফুডটসকে ২ হাজার টাকা, হোটেল প্যরাগনকে ৫ হাজার টাকা, মা কুলিং কর্ণারকে ১ হাজার টাকা, সাতকানিয়া কুলিং কর্ণারকে ২ হাজার টাকা, ইজি মালঞ্চকে ১ হাজার টাকা, হাজী বিরানিকে ৫শ টাকা, মালঞ্চকে ৫শ টাকা অর্থদন্ড করেন।
জানা গেছে, নগরের কোতোয়ালি সদরঘাট ও ডবলমুরিং এলাকায় অভিযান চালান নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুরাইয়া ইয়াসমিন। সরকারি নির্দেশনা ও স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করায় শেরে বাংলা রেস্তোরাঁকে ২ হাজার টাকা, হানিফ হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্টকে দেড় হাজার টাকা, মাওলানা হোটেল এন্ড বিরানি হাউসকে দেড় হাজার টাকা, বাংগালীয়ানা রেস্তোরাঁকে ৫ হাজার টাকা, হোটেল হান্নান আল ফয়েজকে ৪ হাজার টাকা, হাজী বিরিয়ানি হাউজকে ১ হাজার টাকা ও উজালা হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্টকে ৩ হাজার  টাকা জরিমানা করেন তিনি। তিনি মোট ৭টি মামলায় ১৮ হাজার টাকা অর্থদন্ড আদায় করেন।  এদিকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মামনুন আহমেদ অনিক পাঁচলাইশ ও চান্দগাঁও এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে ৭ টি মামলায়  ৫ হাজার ৭শ টাকা জরিমানা আদায় করেন। এছাড়াও সাধারণ মানুষের মাঝে মাস্ক বিতরণ করেন। নগরের চকবাজার ও বাকলিয়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৩টি মামলা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ফাহমিদা আফরোজ। এসব মামলায় ২ হাজার ৩শ টাকা জরিমানা আদায় করেন তিনি।
নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উমর ফারুক বলেন, কয়েকদিন ধরে লক্ষ্য করা যাচ্ছে রেস্টুরেন্ট মালিকরা সরকারি বিধিনিষেধ ও স্বাস্থ্য বিধি উপেক্ষা করে জনসমাগম করছেন। ফলে আজকে ৬জন ম্যাজিস্ট্রেট রেস্টুরেন্টগুলোতে সকাল-বিকাল দুই শিফটে অভিযানে যান। সেখানে যারা স্বাস্থ্যবিধি মানছে না বা সরকারি নির্দেশনা মানছে না তাদের প্রাথমিকভাবে জরিমানা করে সতর্ক করেছে। আজকের অভিযানে ৩৮টি মামলায় ৫২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি ও সরকারি নির্দেশনা মানাতে প্রশাসনের এ অভিযান অব্যহাত থাকবে বলে জানান জেলা প্রশাসনের এই কর্মকর্তা।

আপনার ভালো লাগতে পারে এমন আরো কিছু খবর