আজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মদিন

  |  মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২১ |  ১০:০৯ পূর্বাহ্ণ
       

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি জননেত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মদিন আজ। ১৯৪৭ সালের এই দিনে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় তিনি জন্মগ্রহণ করেন। স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছার জ্যেষ্ঠ সন্তান তিনি।
আধুনিক বাংলাদেশের রূপকার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শৈশব কেটেছে মধুমতী নদী বিধৌত টুঙ্গিপাড়ায়। ’৫৪-এর নির্বাচনের পর বাবা-মায়ের সঙ্গে ঢাকায় চলে আসেন শেখ হাসিনা।
রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান হিসেবে রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন ছাত্রজীবন থেকেই। রাজনীতি করতে গিয়ে তিনি যেমন পেয়েছেন মানুষের ভালোবাসা, ঠিক তেমনই হয়েছেন প্রতিহিংসার স্বীকার। এ জন্য তিনি করেছেন কারাভোগ, হয়েছেন একাধিকবার গৃহবন্দীও। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট রাতে ঘাতকদের গুলিতে হারিয়েছেন প্রিয়জনদের। তখন বিদেশে ছিলেন শেখ হাসিনা ও ছোট বোন শেখ রেহানা।
১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারকে হত্যার প্রায় ৬ বছর পর ১৯৮১ সালে দলের সম্মেলনে শেখ হাসিনাকে আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। ওই বছর ১৭ মে দেশে ফিরেই দলীয় প্রধানের দায়িত্ব নেন শেখ হাসিনা। ১৯৯৬ সালে তার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়ী হয়ে ক্ষমতায় আসে। প্রথমবারের মতো প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নেন শেখ হাসিনা। এরপর ২০০৮ সালে দ্বিতীয়, ২০১৪ সালে তৃতীয় ও ২০১৮ সালের নির্বাচনের মাধ্যমে চতুর্থবারের মতো প্রধানমন্ত্রী হন তিনি।
বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা ঢাকার আজিমপুর বালিকা বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাস করেন। ১৯৬৭ সালে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেন ঢাকার বকশীবাজারের পূর্বতন ইন্টারমিডিয়েট গভর্নমেন্ট গার্লস কলেজ (বর্তমান বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা মহাবিদ্যালয়) থেকে। স্নাতক পাস করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। ১৯৬৭ সালের ১৭ নভেম্বর পরমাণুবিজ্ঞানী ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়ার সঙ্গে শেখ হাসিনা বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। স্বাধীনতাযুদ্ধ চলাকালে গৃহবন্দী থাকা অবস্থায় ১৯৭১ সালের ২৭ জুলাই শেখ হাসিনার প্রথম সন্তান সজীব ওয়াজেদ জয়ের জন্ম হয়। ১৯৭২ সালের ৯ ডিসেম্বর জন্ম নেন তার কন্যা সায়মা ওয়াজেদ পুতুল।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সব সময় নতুন প্রজন্ম ও তারুণ্যের কথা ভেবেছেন। এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা উপকমিটির সদস্য সৌরভ কুমার সাহা বলেন, তারুণ্যের শক্তির উপর তিনি বরাবরই আস্থাশীল। সর্বশেষ আওয়ামী লীগের কমিটি এবং বর্তমান মন্ত্রীসভার দিকে লক্ষ্য করলে সেটি বোঝা যায়। শেখ হাসিনা ব্যক্তিগতভাবে খুবই পরিশ্রমী একজন মানুষ। মানসিক শক্তির জোরেই তিনি দিনরাত এক করে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। তথ্য প্রযুক্তি নির্ভর জ্ঞানভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠা এবং ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের উন্নীত করার লক্ষ্য ২০০৯ সালে শেখ হাসিনার হাত ধরে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের অভিযাত্রা শুরু হয়। এই লক্ষ্যে তথ্য প্রযুক্তি অবকাঠামোগত উন্নয়ন, কানেকটিভিটি স্থাপন, ই-গভর্নেন্স প্রতিষ্ঠা, দক্ষ মানব সম্পদ তৈরি, মোবাইল অ্যাপস উন্নয়ন এবং ই-কমার্স প্রসারসহ নানান প্রকল্প বাস্তবায়ন তারুণ্যের কৌতূহলকে জয় করেছে। এককথায় বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা তার শাসনামলে দেশকে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে বিশ্ব দরবারে প্রতিষ্ঠিত করে তারুণ্যকে আকাশ ছোঁয়া বাস্তবভিত্তিক স্বপ্ন দেখিয়ে তাদের হৃদয় জয় করেছেন।