আগামী নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগের নানা চিন্তা

 ঢাকা ব্যুরো |  বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ১৯, ২০২৩ |  ১০:৪৪ পূর্বাহ্ণ
       

আগামী নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগে নানা চিন্তা চেতনা কাজ করছে। নির্বাচনকে সুষ্ঠ করতে এবং সব দলের অংশ গ্রহন নিশ্চিত করতে নেয়া হতে পারে নানা পরিকল্পনা। এ সময় বিএনপির চলমান আন্দোলনকে কোন ভাবেই দানা বাধতে দেয়া হবে না। তবে বিরোধীদের আন্দোলনকে কম গুরুত্বও দিচ্ছে না দলটির নেতারা। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, বিএনপি আন্দোলনকে খুব বেশি দূর এগিয়ে নিতে পারবে না। কারণ আগামী মার্চে পবিত্র মাহে রমজান। একমাস বিএনপি চেষ্টা করলেও আন্দোলনকে বেগবান করতে পারবে না। এ পর্যন্ত দলটি কয়েক দফা সমাবেশ করে দলকে যতটা চাঙ্গা করতে পারছে তা আর ধরে রাখতে হয়ত পারবে না। তারপর মে- জুনে তো বর্ষার্ হাকডাক। এই করতে করতে বছর শেষ হয়ে যাবে। এসে যাবে নির্বাচনের দিন। তবে সরকার যেটাকে গুরুত্ব দিচ্ছে, তাহলো বিগত বিএনপির আমল গুলোতে বিএনপি ছাত্রদলের বহু নেতা সরকারী নানা পদে নিয়োগ পেয়েছে। তারা সরকারে থেকে নানা কলকাঠি নাড়তে পারে। তাদেরকে কিভাবে সাইজ করা যায় তাই নিয়েই ভাবনা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে,বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে ২০০৫ সালে নির্বাচন কমিশনে নিয়োগ দেওয়া হয় তিন শতাধিক কর্মকর্তা। প্রধান নির্বাচন কমিশনার ছিলেন তখন এমএ আজিজ। নন গেজেটেড এ কর্মকর্তাদের নিয়োগ পরীক্ষা নেয় পাবলিক সার্ভিস কমিশন (পিএসসি)। উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ পান তারা। তাদের মধ্যে বড় অংশই এখন জ্যেষ্ঠ ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার পদে পদোন্নতি পেয়ে কর্মরত। অন্তত ৩০ জেলা ও কমপক্ষে ১৮০ উপজেলায় জাতীয় নির্বাচনে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করবেন ওই কর্মকর্তারা।

অবশ্য আওয়ামী লীগের গবেষণা সেল সিআরআইয়ের তথ্যনুযায়ী এ সংখ্যা আরও বেশি। তাদের অপেশাদার আচরণ নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য বড় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করার আশঙ্কা করছে আওয়ামী লীগ।

বিষয়টি নিয়ে ক্ষমতাসীন দলের দুই সদস্য উদ্বেগের কথা প্রকাশ করে বলেছেন, ২০০৫ সালে নিয়োগ দেওয়া বেশিরভাগ কর্মকর্তা জেলা-উপজেলা পর্যায়ে গুরুত্বপূর্ণ পদে আছেন। এদের বেশিরভাগই ছাত্রদল অথবা শিবিরের রাজনীতির সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে সম্পৃক্ত ছিলেন। রাজনৈতিক ওই পরিচয়ে নিয়োগ পাওয়া কর্মকর্তারা বড় দুশ্চিন্তার হয়ে উঠতে পারেন। এ কর্মকর্তারা রাজশাহী, বগুড়া, পাবনা, সিরাজগঞ্জ এলাকার।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য কাজী জাফরউল্যাহ বলেন, বিএনপি শাসনামলে ক্ষমতা পাকাপোক্ত করতে সবসময়ই নির্বাচন কমিশনকে ব্যবহার করেছেন। ফলে বিতর্কিত হয়েছে সাংবিধানিক এ কমিশনটি। শুধু নির্বাচন কর্মকর্তাই নয়, ভুয়া ভোটারও বানিয়েছে বিএনপি। বিতর্কিত নির্বাচন কর্মকর্তা নিয়ে আমরা সতর্ক আছি, কমিশনকে সজাগ থাকতে হবে বেশি।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় বিভিন্ন পর্যায়ের পদে থাকা নেতারা বলেন, এসব কর্মকর্তার অপেশাদার দায়িত্ব দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে ক্ষতিগ্রস্ত করার ক্ষেত্র তৈরি করতে পারার এমন ভয় দেখছে দলটি। পাশাপাশি বিএনপি-জামায়াত জোটের আমলে পুলিশ ও সিভিল প্রশাসনে নিয়োগ পাওয়া কর্মকর্তারাও আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের জন্য উদ্বেগের। এসব কর্মকর্তাকে কীভাবে পেশাদারিত্বের সঙ্গে দায়িত্ব পালনে পাওয়া যায় সেই কৌশল খুঁজছে ক্ষমতাসীনরা। তা না হলে নিষ্ক্রিয় করারও চিন্তা করেছে আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী মহল।

নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের ওই নেতারা আরও বলেন, ওই কর্মকর্তাদের অনেকের সঙ্গে বিএনপির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা নতুন করে যোগাযোগ বা সম্পর্ক ঝালাই করতে শুরু করেছেন। তবে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সোর্স ওই কর্মকর্তাদের ওপর কড়া নজরদারি করছে বলে জানা গেছে।

আওয়ামী লীগে একাধিক কেন্দ্রীয় নেতা বলেন, গাইবান্ধা-৫ আসনে উপনির্বাচনে ভোট বন্ধের যে নজির স্থাপন করেছে নির্বাচন কমিশন, তাতে বিএনপির আমলের নিয়োগ দেওয়া কয়েকজন কর্মকর্তার যোগসাজশ থাকতে পারে বলে মনে করছে ক্ষমতাসীরা। ওই কর্মকর্তারা নানা নেতিবাচক ঘটনা তুলে ধরে প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য কমিশনারের এমন সিদ্ধান্ত নেওয়ার ব্যাপারে ভূমিকা রেখেছেন বলে সন্দেহ করছে আওয়ামী লীগ।

ভোট একেবারেই বন্ধ করে দেওয়ার নজির বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথম দাবি করে আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর এক সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, গাইবান্ধার উপনির্বাচন প্রথম দফায় বন্ধ করার ঘটনায় আওয়ামী লীগ ও সরকারের সঙ্গে নির্বাচন কমিশনের কিছুটা দূরত্ব সৃষ্টি হয়। এ দূরত্ব কমাতে কমিশনের পক্ষ থেকে উদ্যোগ গ্রহণ করা হলেও তাতে সায় দেয়নি আওয়ামী লীগের কেউ।

সভাপতিমন্ডলীর ওই নেতা আরও বলেন, ভোট বন্ধ করে দেওয়ার নজির সৃষ্টি করে যে জটিলতা তৈরি করা হয়েছে তা কমিশনকেই দূর করতে হবে এমন অবস্থান নেয় ক্ষমতাসীনরা। তিনি বলেন, অবশেষে নির্বাচন সম্পন্ন করে দূরত্ব কমাতে অনেকখানি সফল হলেও কমিশনের প্রতি এক ধরনের সন্দেহ দানা বেঁধেছে আওয়ামী লীগের মধ্যে। এসব নানাদিক চিন্তা করে বিএনপির আমলে নিয়োগ দেওয়া কর্মকর্তাদের নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়েছে। এ কর্মকর্তাদের নিয়ে গত বছর ৩১ জুলাই নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিবালয়ে কর্মকর্তাদের সঙ্গে সংলাপে আওয়ামী লীগের প্রতিনিধিদল সুনির্দিষ্ট করে অভিযোগও দিয়েছে।

ওই সংলাপে ইসিতে দেওয়া ১৪ প্রস্তাবের মধ্যে ৩ নম্বরে আওয়ামী লীগ নির্বাচন কমিশন সচিবালয় এবং এর মাঠপর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দায়িত্বশীল ও নিরপেক্ষ আচরণ দাবি করে। দলটি বলেছে, ‘এটি সর্বজন স্বীকৃত, আওয়ামী লীগ ছাড়া অন্যান্য সব সরকারের সময় নির্বাচন কমিশনকে দলীয়করণ করা হয়েছে। নির্বাচন কমিশনে একদিকে যেমন দলীয় আনুগত্যের ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল, অন্যদিকে বিএনপি-জামায়াত অশুভ জোট সরকারের সময় কর্মকর্তা পর্যায়ে হাওয়া ভবনের মাধ্যমে বিপুলসংখ্যক দলীয় ব্যক্তিকে নিয়োগ দেওয়া হয়। ওইসব দলীয় ব্যক্তি এখন নির্বাচন কমিশনের আওতাভুক্ত বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে রয়েছেন। নির্বাচনকে নিরপেক্ষ ও প্রভাবমুক্ত রাখার লক্ষ্যে এ বিষয়ে কমিশনকে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।’

একই প্রস্তাবে বলা হয়েছে, ‘বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সময় দলীয়করণের অংশ হিসেবে পুলিশসহ সিভিল প্রশাসনে ব্যাপকভাবে দলীয় নেতাকর্মীদের দেওয়া হয়েছে। তাদের অনেকেই এখন জেলা পর্যায়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত অথবা দায়িত্ব পাওয়ার জন্য অপেক্ষমাণ। এসব কর্মকর্তার তালিকা প্রস্তুতপূর্বক তাদের সব ধরনের নির্বাচনী দায়িত্ব থেকে বাইরে রাখতে হবে।’
আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে নির্বাচন কমিশনসহ সরকারের সকল বিভাগের কর্মকতাদের নিয়োগ ও তাদের কর্মকান্ডের প্রতি নজর রাখা হচ্ছে। সময় মতো পদক্ষেপ নিয়ে প্রশাসনকে নিরপেক্ষ এবং মুুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তির হাতে অর্পন করতে চায় ক্ষমতাসীনরা।