কর্ণফুলীতে তেল শুক্কুর ও তিন ছেলের বিরুদ্ধে শিক্ষিকাকে নির্যাতনের অভিযোগ

 নিজস্ব প্রতিবেদক |  মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ১৪, ২০২১ |  ৯:৪৭ অপরাহ্ণ
       

কর্ণফুলীতে নানান অপকর্ম নিয়ে বিভিন্ন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হওয়ায় সুমি আক্তার নামে এক স্কুল শিক্ষিকাকে নির্যাতন ও পরিবারে উপর সন্ত্রাসী হামলার অভিযোগ উঠেছে। কর্ণফুলী নদীতে তেল চোরাকারবারিদের মূলহোতা শুক্কুর ও তার তিন ছেলের বিরুদ্ধেএ অভিযোগ করেন ওই স্কুল শিক্ষিকা। স্থানীয় মরিয়ম আশ্রম উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা সুমি আকতারের অভিযোগ, শুক্কুর ও তার ছেলেরা মনে করছে পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদগুলো আমরাই করিয়েছি। সেকারণে আমাদের ওপর হামলা চালায় তারা। ১৪ সেপ্টেম্বর (মঙ্গলবার) সকাল ১১ টায় চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের এস রহমান হলে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যরা।
লিখিত বক্তব্যে তিনি অভিযোগ করে বলেন, আব্দুস শুকুর প্রকাশ তেল চোর শুক্কুর দীর্ঘদিন ধরে কর্ণফুলী নদীর বহির্নোঙ্গরে আসা-যাওয়ার তেলবাহী জাহাজ থেকে অবৈধ তেলের কারবার করে আসছে। এছাড়াও সরকার অনুমোদিত ডিলার পদ্মা, মেঘনা ও যমুনা অয়েল কোম্পানির তেল সরবরাহের জাহাজ থেকে তেল চুরি করে কালোবাজারে বিক্রি করে আসছে।
তিনি আরও বলেন, তার তিন ছেলে ইয়াবা মনির, দেলোয়ার হোসেন এবং কিশোর গ্যাং লিডার হৃদয়ের বিরুদ্ধেও মাদক কারবারী ও ভুমি দখলের বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে। আর এসব অপকর্মের সংবাদ বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত হয়। কিন্তু এসব সংবাদ বা পত্রিকার সাথে আমাদের কোন সর্ম্পক নেই বা আমরা জানতামও না। কিন্ত এসব সংবাদ প্রকাশের পিছনে আমি ও আমার পরিবার জড়িত থাকায় অভিযোগ এনে গত ৯ সেপ্টেম্বর ধারালো অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে আকস্মিকভাবে আমার পরিবারের উপর হামলা করে সন্ত্রাসীরা।
তিনি বলেন, হামলায় তারা আমার ডান হাতে ছুরি দিয়ে আঘাত করে, আমার বৃদ্ধ পিতার বাম হাতে ছুরি দিয়ে তিনটি কোপ দেয় এবং মায়ের চুলের মুঠি ধরে লাথি ও খিল ঘুষি মেরে মারাত্মকভাবে আহত করে। আমার বড় ভাইকেও লোহার রড এবং লাঠি দিয়ে আঘাত করে। কিন্ত এ হামলার বিষয়ে থানা পুলিশসহ প্রশাসনকে জানালেও তারা কোন মামলা বা ব্যবস্থা নেয়নি। আর তাদের বিরুদ্ধে কোন পদক্ষেপ না নেওয়ায় তারা আরো বেপরোয়া হয়ে উঠে।
এসময় ভুক্তভোগী পরিবারের অনান্য সদস্যরা তাদের জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে বলেন, আবদুস শুক্কুর ও তার ছেলেদের ভয়ে তারা নিজ বাড়িতে ঢুকতে পারছেনা। তাই এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। প্রশানের কাছে নির্যাতনকারী দোষী ব্যক্তিদের অনতিবিলম্বে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানাচ্ছি। সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্য মো. রুবেল, মো. ইলিয়াস, রোজী আক্তার ও জরিনা খাতুন।