একদিনে ২৩টি ক্ষেপণাস্ত্র ছুঁড়লো উত্তর কোরিয়া

 বিশ্ব ডেস্ক |  বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ৩, ২০২২ |  ৪:৫৯ অপরাহ্ণ
       

মাত্র একদিনে ২৩টি ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়ে ব্যাপক আঞ্চলিক উত্তেজনার সৃষ্টি করেছে উত্তর কোরিয়া।

বুধবার (২ নভেম্বর) এই ক্ষেপণাস্ত্রগুলো ছোড়ে দেশটি।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স-এর প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রতিটি ক্ষেপণাস্ত্রই সমুদ্রে নিক্ষেপ করা হয়েছে। তবে এর মধ্যে কয়েকটি ক্ষেপণাস্ত্র জাপানের ওপর দিয়ে গিয়ে সমুদ্রে পড়েছে। একটি ক্ষেপণাস্ত্র দক্ষিণ কোরিয়ার সমুদ্রতট থেকে মাত্র ৫৭ কিলোমিটার দূরে গিয়ে পড়েছে। যার জেরে উলেউং দ্বীপে যুদ্ধের সাইরেন বেজে ওঠে।

বুধবার স্থানীয় সময় সকাল থেকেই একের পর এক ক্ষেপণাস্ত্র ছুঁড়তে থাকে উত্তর কোরিয়া। পাল্টা জবাব দিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়াও। তাদের ক্ষেপণাস্ত্রও দুই কোরিয়ার মধ্যবর্তী বাফার জোনে গিয়েই পড়েছে। দক্ষিণ কোরিয়া এবং জাপানের দাবি, এদিন বেশ কয়েকটি কম পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্রও নিক্ষেপ করেছে উত্তর কোরিয়া।

ঘটনার পর জাপানের প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদা বলেছেন, “উত্তর কোরিয়াকে কোনোভাবেই ক্ষমা করা হবে না।”

তিনি জানান, এদিন উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র জাপানের আকাশ দিয়ে এমনভাবে গেছে যে মিয়াগি, ইয়ামাগাতা এবং নিগাতা অঞ্চলে সাইরেন বেজে উঠেছে। বেসামরিক মানুষকে নিরাপদ আশ্রয়ে নিয়ে যেতে হয়েছে।

দক্ষিণ কোরিয়াও ঘটনার কড়া সমালোচনা করেছে।

উত্তর কোরিয়া জানিয়েছে, কোরীয় উপকূলে জাপান, যুক্তরাষ্ট্র এবং দক্ষিণ কোরিয়ার যৌথ সামরিক মহড়ার জবাবেই তারা এ কাজ করছে। কারণ, শুরু থেকেই এই মহড়াকে উত্তর কোরিয়া হুমকি বলে মনে করছে।

তবে জাপানের সামরিক বাহিনী দিয়েছে ভিন্ন তথ্য। তারা বলছে, উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র চিহ্নিত করার পর অ্যালার্ট জারি করা হয়েছিল। কিন্তু পরে মিসাইলের গতিপথ ট্র্যাক করা হয়েছে। ক্ষেপণাস্ত্রটি জাপানের খুব কাছ দিয়ে গেলেও তার আকাশসীমায় ঢোকেনি।

এ ঘটনায় উত্তর কোরিয়ার কড়া নিন্দা করেছে যুক্তরাষ্ট্র। ওয়াশিংটন বলছে, “উত্তর কোরিয়া যা করছে তা ক্ষমাহীন। দক্ষিণ কোরিয়া এবং জাপানকে রক্ষা করার জন্য যুক্তরাষ্ট্র সর্বদা আছে।”

ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্রবিষয়ক প্রধান জোসেপ বোরেল বলেছেন, উত্তর কোরিয়া উত্তেজনা ক্রমশ বাড়াচ্ছে। যুক্তরাজ্যও এর নিন্দা করেছে। রাশিয়া উত্তর কোরিয়াকে শান্ত হওয়ার পরামর্শ দিয়েছে।

এরই মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের অভিযোগ, উত্তর কোরিয়ার কাছ থেকে অস্ত্র এবং গোলা-বারুদ কিনছে রাশিয়া। ইউক্রেন যুদ্ধে তা ব্যবহার করা হচ্ছে। যদিও উত্তর কোরিয়া একাধিকবার এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

ইউডি