রোগীর কষ্টের টাকায় কেনা ওষুধ চমেকের কর্মচারীরা পাচার করে বাইরে

আটক ১

 নিজস্ব প্রতিবেদক |  শনিবার, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০২২ |  ৭:১১ অপরাহ্ণ
       

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের অধিকাংশই দরিদ্র,নিম্নজীবী জনসাধারণ। যাদেরকে সাধারণ ভাবেই নানা কষ্টের মধ্যে দিনাতিপাত করতে হয়। এই জনগোষ্ঠীর রোগীরা যখন চমেকে ভর্তি হয় তখন চিকিৎসার প্রয়োজনে সরকারি সহায়তার পাশাপাশি তাদেরকে অনেক চিকিৎসা সামগ্রী বাইরে থেকেও ক্রয় করতে হয়। ধার দেনা করে নানা কৃচ্ছতা অবলম্বন করে রোগীর স্বজনরা প্রয়োজনীয় ওষুধ পত্র কিনে তা তুলে দেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের হাতে। আর হাসপাতালের একশ্রেণির কর্মকর্তা-কর্মচারীদের যোগসাজশে মানুষের কষ্টের টাকায় কেনা এই ওষুধপত্র চিকিৎসা সামগ্রী পাচার হয়ে যায় বাইরে। দীর্ঘদিন ধরে চমেক হাসপাতালে ওষুধ চোর চক্রের এই সিন্ডিকেট বিনা বাধায় চোরাই ওষুধ বাণিজ্য চালিয়ে আসছে।

শনিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) ভোরে চমেক হাসপাতালের অপারেশন থিয়েটারের সামনে থেকে আরাফাতুল ইসলাম নামে চোর চক্রের এক সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এসময় তার কাছ থেকে ২৫ রকমের ওষুধ উদ্ধার করা হয়।

এই ব্যাপারে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. শামীম আহসান বলেন, ওষুধ চুরির ব্যাপারে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কঠোর। চোর চক্রের সদস্যদের ধরতে আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। ভোরে ওষুধসহ একজনকে আটক করা হয়েছে। তার সঙ্গে বেশকিছু ওষুধ পাওয়া গেছে। তার বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। আগেও ওষুধ চোর চক্রের সদস্যদেরকে গ্রেফতার হয়েছে।

চট্টগ্রাম মেডিক্যাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ নুর উল্লাহ আশেক বলেন, অভিযান চালিয়ে হাসপাতালের অপারেশন থিয়েটারের সামনে থেকে ব্যাগ ভর্তি ওষুধসহ একজনকে আটক করা হয়েছে। তার কাছ থেকে ২৫ ধরনের ওষুধ পাওয়া যায়। জিজ্ঞাসাবাদে সে জানায়, অপারেশন থিয়েটারের কর্মচারীরা এসব ওষুধ তার কাছে বিক্রি করেছে। উদ্ধারকৃত এসব ওষুধ মূলত রোগীর। যা বিভিন্নভাবে চুরি করে হাসপাতালের কর্মচারীরা। এর আগেও বিভিন্ন সময় ওষুধ চোর চক্রের ৮ সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়।

ইউডি